বুধবার, নভেম্বর ২৫, ২০২০

শিরোনাম

  ঢাকা থেকে প্রকাশিত জনপ্রিয় দৈনিক কালের কথা পত্রিকার জন্য বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আগ্রহী প্রার্থীরা ০১৭০১৭০৩৪৪২ নাম্বারে যোগাযোগ করুন।  

ভদ্রতাই ভদ্রলোকের পরিচয়: মাসুম বিল্লাহ কাওছারী


ভদ্রতাই ভদ্রলোকের পরিচয়: মাসুম বিল্লাহ কাওছারী

প্রকাশিতঃ শনিবার, অক্টোবর ২৪, ২০২০   পঠিতঃ 29484


:: মাসুম বিল্লাহ কাওছারী ::

কাহলীল জিব্রান বলেছিলেন, “কোমলতা কিংবা সৌহার্দশীলতা কোন দুর্বলতা কিংবা হতাশা নয় বরং এগুলো হচ্ছে দৃঢ় সংকল্পতা ও শক্তির পরিচায়ক।এরিস্টটল উদাহরণ দিয়ে বলেছিলেন “ভদ্র" হচ্ছেন সেই ব্যাক্তি যিনি “রাগ" এর ব্যাপারে মধ্যম পন্থা অবলম্বন করেন অর্থাৎ অল্পতে রাগান্বিত যেমন হয়ে যান না ঠিক তেমনি একদম রাগ-দুঃখবিহীন ও না। ন্যায্য ও যুক্তি সংগত রাগের নাম হচ্ছে “ভদ্রতা"।

ভদ্রতা নিয়ে আমরা সবাই কমবেশী চেঁচামেচি হৈহুল্লো করি প্রতিনিয়ত, নিজেকে কে কতটা ভদ্র হিসেবে প্রমান করতে পারি তার একটা প্রতিযোগিতা চলে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে আসলে ভদ্রতা কি? আজ বিকেলে হাতিরঝিলে র মধ্যে দিয়ে পায়ে  হেটে গুলশান-১ এ যাচ্ছিলাম হঠাৎ রোডের উপরে এক ছেলে এক মেয়ের ধস্তা ধস্তি এক পর্যায়ে হাতাহাতি। একজন আর একজনকে অসভ্য অভদ্র বলে গালিগালাজ করছে। মেয়েটা ছেলেটার গেঞ্জির কলার ধরে টানা হেচড়া করছে। আমার কপাল ভালো ছেলেটার ধাক্কায় মেয়েটা একটুর জন্য আমার গায়ে পড়েনি। "রাস্তাটাকে ঘরবাড়ি বানায়ে ফেলিয়েন না" বলে হাতে সময় না থাকায় আমি হেটে অতি তাড়াতাড়ি ঘটনা স্থল ত্যাগ করে চক্রাকার বাসে উঠলাম। মেয়েটা প্যান্ট-সাট পড়া এবং ইন করা ও ছেলেটা প্যান্ট আর গেন্জি পড়া  ছিল। দেখতে দুজনকেই বেশ ভদ্র মনে হয়েছে।অনেক গুলো লোক তাকিয়ে তাকিয়ে ভদ্রবেশী দুজন ছেলে মেয়ের হাতাহাতি বাংলা ছিনেমার কোনো এক পর্ব মনে করে দেখছিলো। 
অন্য দিকে ঠিক একই ধরণের আর একটি  ঘটনা ঘটেছিলো গুলশান ডিসিসি মার্কেটের মসজিদের সামনে গত বৃহস্পতিবার ঠিক সন্ধ্যার একটু পরে। ছেলে মেয়ে উভয় উভয়কে খুব খারাপ ভাষায় গালিগালাজ করছিলো। দর্শকদের কেউ কেউ মন্তব্য করছিলো এগুলারে গুলশান এলাকায় ঢুকতে দেয়াই ঠিকনা।  অনেকের  সাথে সাথে আমিও বিষয়টি অল্প সময়ের জন্য দেখছিলাম।  আমার আসল কথা ওসব বিষয় নিয়ে না, আসল কথা হলো আমাদের দৃষ্টি ভঙ্গী নিয়ে। একই ধরণের হাতাহাতি প্যান্ট সাট পড়া দুজনে করলো আমরা বললাম ভদ্রলোক আর ভদ্র মহিলা রাস্তায় এগুলো না করলেও পারতো অন্যদিকে ওদেরকে বললাম এদের এই এলাকায় ঢুকতে দেওয়াই ঠিকনা। দুটোই কিন্তু একই ধরণের অন্যায় কিন্তু আমাদের দৃষ্টিভঙ্গী আলাদা আলাদা।      

ভদ্রতা হচ্ছে একটি শক্তিশালী হাতের কোমল ও স্নিগ্ধ স্পর্শ; অন্যজনের দুর্বলতা আর সীমাবদ্ধতায় সহানুভূতিশীল, সুবিবেচক ও সৌহার্দশীল আচরণ। একজন ভদ্র মানুষ সর্বদাই স্পষ্ট কথা বলেন। অন্যদের জন্য কখনও তা হয়ে পড়ে বেদনাদায়ক কিন্তু ভদ্রজন তার স্পষ্ট কথার প্রকাশকে সচেতনভাবে নিয়ন্ত্রণ করেন যাতে করে অন্যরা সত্য ও স্পষ্টতাকে দ্রুত উপলব্ধি করতে সক্ষম হতে পারেন।

আমাদের সমাজে ভদ্রতাকে দুর্বলতা ভাবা হয় আর চাটুকারিতাকে যোগ্যতা ভাবা হয়। ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে মানব সম্পদ নিয়ে দীর্ঘদিন কাজ করার সুবাদে অনেক চাকরির ইন্টারভিউ বোর্ড এর সদস্য সচিব এর দায়িত্ব পালন করতে হতো আমাকে। প্রায়ই দেখতাম বোর্ড এর অন্য অন্য সদস্যরা বেশি মার্জিত,নম্র ও ধীরগতির প্রার্থীদেরকে হাবাগোবা বা বেশী ক্সপার্ট না বলে কমেন্ট করে বসত। অন্য দিকে যারা খুব চাপা টাপা মেরে ঠুসঠাস কিছু বলে ফেলতো তাদেরকে অনেক সময় দক্ষ বা স্মার্ট মনে করা হতো। ইয়ারলি ইভালুয়েশন এর সময় এগুলোর অনেক বড় প্রভাব পড়তো প্রমোশন কিংবা বেতন বাড়ার ক্ষেত্রে। 

ভালো মানুষের সংজ্ঞা আসলে কি?  কেউ কেউ মনে করে ভাল কাজ করে বেঁচে থাকা, কেউ আবার মনে করে সঠিকভাবে ধর্ম পালন করে বেঁচে থাকা। অনেকই বলে মনকে সুন্দর করা। কেউ কেউ মনে করেন মানুষ ও মানবতার কল্যানে নিজেকে উৎসর্গ করা। তবে ঘুরেফিরে এক ই কথা বলে সবাই। “ভালো”র কথা। আমি ভালো মানুষের মানে নিয়ে ভাবতে গিয়ে একে তিনভাগে ভাগ করে ফেললাম। প্রথমত, দ্বিতীয়ত, তৃতীয়ত। এদের সবাইকে আমি ভাল মানুষ বলি। প্রথমের চেয়ে দ্বিতীয় আরেকটু বেশি ভাল, দ্বিতীয়র চেয়ে তৃতীয় আরেকটু বেশি ভাল। আমার এই ভাগ করার কারণ হলো, শুরুতেই কেউ মহান হতে পারবে না। শুরুতে লাগবে “ম” তারপর “হা” তারপর “ন” সব মিলে মহান।

প্রথমতঃ এখনো পৃথিবীতে প্রতি তিনজনের দুজনই ভালো এবং ভদ্র মানুষ। ওই সমস্ত মানুষদেরকে আমি শুরুতেই ভাল মানুষ বলে দিতে চাই, যারা কোন মানুষের সাথে খারাপি বা অন্যায় করে না । আমি মনে করি কোন মানুষের ভেতর যদি এই একটি গুন থাকে, তবে সে একজন ভাল মানুষ।


দ্বিতীয়তঃ প্রথমের গুন গুলো সাথে নিয়ে সে সামনে আগাবে। নিজের ভুল গুলো স্বচক্ষে দেখতে পারবে এবং সে নিয়মের বাইরে কারো কোনো ধরণের ক্ষতি সাধন  করবে না।অন্যের সাথে সৎ ভাবে চলাফেরা করবে ও নিজের ভেতরে বিনয় ও নম্রতার সঠিক চর্চা করবে। ভাল মানুষ নিজের সাধ্যের মধ্যে অন্যকে সাহায্য করবে ও মানব কল্যানে আত্মউৎসর্গ করবে। 

তৃতীয়তঃ প্রথম ও দ্বিতীয়ের গুন গুলো সাথে নিয়ে সে সামনে আগাবে। সে মানুষ, প্রাণী সহ সকল সৃষ্টিকে ভালবাসবে। সমাজ, দেশ, বিশ্বের মানুষের সুখ – দুঃখ তাকে ভাবাবে। অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবে। এবং অন্যায়কে পদদলিত করে ন্যায় প্রতিষ্ঠা করবে সবসময়।যার মন হবে সমুদ্রের মত বিশাল। অন্যের দুঃখে সে ব্যাথিত হবে। উদার হবে সকল মানুষ, প্রাণীর প্রতি জাতি ধর্ম নিবিশেষে এবং ন্যায়ের কথা বলবে সদা সর্বদা। 

লেখকঃ সম্পাদক, দৈনিক কালের কথা ও নির্বাহী পরিচালক,SEDRO 

 

কালেরকথা/বিডি

মন্তব্য করুন

Logo

সম্পাদক: মাসুম বিল্লাহ কাওছারী

সিডরো মিডিয়া গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে রিনা দাশ কর্তৃক উত্তরা রেসিডেন্সিয়াল এলাকা ঢাকা থেকে প্রকাশিত

 01701703442   ||   info@dailykalerkotha.com