মঙ্গলবার, অক্টোবর ২০, ২০২০

শিরোনাম

  ঢাকা থেকে প্রকাশিত জনপ্রিয় দৈনিক কালের কথা পত্রিকার জন্য বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আগ্রহী প্রার্থীরা ০১৭০১৭০৩৪৪২ নাম্বারে যোগাযোগ করুন।  

আপনি কেন প্রতিদিন ১ গ্লাস খাঁটি দুধ খাবেন


আপনি কেন প্রতিদিন ১ গ্লাস খাঁটি দুধ খাবেন

প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১, ২০২০   পঠিতঃ 13419


::মাসুম বিল্লাহ কাওসারী::

একটি গবেষণাবলছে , গর্ভাবস্থায় পর্যাপ্ত ভিটামিন ডি পাওয়া শিশুর ভবিষ্যতে অ্যালার্জি হওয়ার ঝুঁকি কম। এছাড়াও গর্ভবতী মহিলাদের শরীর ও তাদের বিকাশকারী শিশুর শরীরকে পুষ্ট করার জন্য প্রতিদিন ১০০০ থেকে ১৩০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়ামের প্রয়োজনযার সিংহভাগ পূরণ হয় খটি দুধ থেকে । Calcium During Pregnancy - Torontek

 গবেষণায় আরো বলাহয়-গর্ভাবস্থায় দুধ পান করাও ভ্রূণের বৃদ্ধি–বিকাশের উপর প্রভাব ফেলে এবং এটি শিশুকে লম্বা হতে সাহায্য করে। কৈশোর বয়সে শিশুটির রক্তে উচ্চ মাত্রায় ইনসুলিন থাকতে পারে যা টাইপ–২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমিয়ে দিতে পারে নিয়মিত দুধ খাওয়ার কারণে। 


পুষ্টি বিজ্ঞানীটা বলছে -দুধে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, অ্যামিনো অ্যাসিড এবং ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে – এগুলি সবই শিশুর স্নায়ুতন্ত্রের বিকাশের জন্য প্রয়োজনীয়। ক্যালসিয়াম এবং আয়রনে সমৃদ্ধ হওয়ার কারণে দুধ শিশুর হাড়ের গঠনে ও বিকাশে এবং শিশুকে অক্সিজেন পরিবহনে সহায়তা করে। ভ্রূণের বিকাশের জন্য দুধের প্রয়োজনীয় সমস্ত ভিটামিন এ, বি এবং ডি রয়েছে।
দুধ কার্যকর অ্যান্টাসিড হিসাবে কাজ করে যা অম্বল এবং অন্যান্য গ্যাস্ট্রিকের অসুস্থতাগুলি সহজ করতে পারে যা গর্ভাবস্থায় একটি সাধারণ সমস্যা।
দুধে আয়োডিনের উপাদান ভ্রূণের মস্তিষ্কের বিকাশ এবং আইকিউ বৃদ্ধি করে।
গর্ভাবস্থায় দুধ সেবন একাধিক স্ক্লেরোসিস, নিউওনাটাল রিকেট এবং অস্টিওপরোসিসের মতো রোগের ঝুঁকির সাথেও যুক্ত।গর্ভাবস্থায় দুধ পান করলে শিশুর ফর্সা হয় বলেও ধারণা রয়েছে। 

Can Pregnant Women Drink Ensure? - thebabylover.com
গবেষণায় দেখা গেছে যে, গর্ভবতী মহিলাদের প্রতিদিন তিনশো থেকে পাঁচশো অতিরিক্ত ক্যালোরি প্রয়োজন হয় একজন সাধারণ মানুষের থেকে। এই অতিরিক্ত ক্যালোরির প্রয়োজনের সাথে এক হাজার দুইশো মিলিগ্রামের ক্যালসিয়াম, ছয়শো থেকে আটশো মাইক্রোগ্রাম ফোলেট এবং সাতাশ মিলিগ্রামের লোহা প্রয়োজন হয়।

দুধ না খেলে কী হয়? 

মানবদেহে দুধের ঘাড়তি দেখা দিলে কি ধরনের ক্ষতি হতে পারে তা নিয়ে বিবিসি বাংলার একটি প্রতিবেদন থেকে দেখা যায় - মানবদেহের হাড় বিষয়ে গবেষণা করে এমন একটি ব্রিটিশ সংস্থা বলছে, তরুণ বয়সে যারা দুধ এবং দুগ্ধজাত খাবার পরিহার করে তাদের জন্য ভবিষ্যতে বিপদ আছে।
জরিপে দেখা গেছে যাদের বয়স ২৫ বছরের কম তাদের মধ্যে পাঁচ ভাগের এক ভাগ তাদের খাদ্য তালিকা থেকে দুধ অথবা দুগ্ধজাত খাবার বাদ দিচ্ছেন। এর ফলে অনেক তরুণ তাদের স্বাস্থ্যকে ঝুঁকির দিকে ঠেলে দিচ্ছে বলে সতর্ক করা হয়েছে।

Cold Milk or Hot Milk - Which One is Better?

গবেষণায় দেখা গেছে- গরুর দুধ হচ্ছে ক্যালসিয়ামের সবচেয়ে ভালো উৎস। একজন প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যক্তির জন্য প্রতিদিন ৭০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়ামের প্রয়োজন হয়। তবে ১১ থেকে ১৮ বছর বয়সীদের জন্য প্রতিদিন এক হাজার মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম দরকার। কিন্তু ব্রিটেনে এ বয়সীদের মধ্যে এক চতুর্থাংশ দিনে ৪০০ মিলিগ্রামের নিচে ক্যালসিয়াম গ্রহণ করে।

তরুণ বয়সে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি থাকলে তার প্রভাব পড়ে বৃদ্ধ বয়সে। বিশেষ করে ৫০ বছরের পর থেকে বেশ দ্রুত হাঁড় ক্ষয়ের সম্ভাবনা তৈরি হয়।
তবে এ প্রবণতা নারীদের ক্ষেত্রে আরো বেশি তৈরি হয় বলে গবেষণা থেকে জানা যায়।

 

লেখক: সম্পাদক, দৈনিক কালের কথা ও নির্বাহী পরিচালক,SEDRO  

কালেরকথা/বিডি

মন্তব্য করুন

Logo

সম্পাদক: মাসুম বিল্লাহ কাওছারী

সিডরো মিডিয়া গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে রিনা দাশ কর্তৃক উত্তরা রেসিডেন্সিয়াল এলাকা ঢাকা থেকে প্রকাশিত

 01701703442   ||   info@dailykalerkotha.com