মঙ্গলবার, নভেম্বর ২৪, ২০২০

শিরোনাম

  ঢাকা থেকে প্রকাশিত জনপ্রিয় দৈনিক কালের কথা পত্রিকার জন্য বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আগ্রহী প্রার্থীরা ০১৭০১৭০৩৪৪২ নাম্বারে যোগাযোগ করুন।  

বই নিতে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরে এল ঘরে


বই নিতে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরে এল ঘরে

প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ২, ২০২০   পঠিতঃ 269703


চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:

নতুন বছরের প্রথম দিন নতুন বই হাতে নেয়ার স্বপ্নে বিভোর ছিল মেধাবী ছাত্রী রেশমি আক্তার হিমু (১০)। সে এবার তৃতীয় শ্রেণী থেকে চতুর্থ শ্রেণীতে উত্তীর্ণ হয়েছিলো তিন নম্বর ক্রমিকে। পড়তো নগরীর পতেঙ্গার কাটগড় মীরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। গতকাল সকালে ঘুম থেকে উঠে মাকে বলে নতুন বই নিতে স্কুলে যাবে। মা তার চুল বেণী পাকিয়ে পরিপাটি করে তৈরি করে দেন। ফুরফুরে মেজাজে দুই বান্ধবীর সাথে স্কুলের পথে পা বাড়ান। কিন্তু গতকাল সকাল ১১টার দিকে কাটগড় এলাকায় ঘাতক ট্রাকের চাপায় চিরতরে নিভে যায় হিমুর প্রাণপ্রদীপ। সেই সাথে নিভে গেলো তাকে ঘিরে বোনা দরিদ্র পিতার স্বপ্নও। হিমুর পরিবারের এখন চলছে শোকের মাতম। নতুন বই নিয়ে আর ঘরে ফেরা হলো না তার।
নিহত হিমু কাটগড় মহিলা কলেজের পার্শ্ববর্তী আলী মিয়া সুখানী বাড়ির মোহাম্মদ শাহানুর এবং বুলু দম্পতির মেয়ে। দুই ভাই বোনের মধ্যে হিমু সবার বড়।
গতকাল দুপুরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের মর্গে গিয়ে দেখা যায়, স্বজনদের কান্নায় ভারি হয়ে উঠেছে হাসপাতাল এলাকার পরিবেশ। একমাত্র আদরের মেয়েকে হারিয়ে শোকে মূহ্যমান পিতা মোহাম্মদ শাহানুর। বিলাপ করে কাঁদতে কাঁদতে বলতে থাকেন-এই মে
য়েকে নিয়ে আমার
অনেক স্বপ্ন ছিল। তাকে বলেছিলাম-যত কষ্টই হোক, তোকে অনেক লেখাপড়া শিখাবো। আমি এখন আমি কাকে নিযে বাঁচবো। এতটুকু বলেই তিনি হাসপাতালের মেঝেতে লুটিয়ে পড়েন।
হিমুর চাচা সাইফুল আলম কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, দুপুরে আমার ভাতিজির এক সহপাঠী বাসায় দৌঁড়াতে দৌঁড়াতে এসে বলে- হিমু একসিডেন্ট করেছে। আমি সাথে সাথে দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছে সে রাস্তায় কাতরাচ্ছে। দ্রুত একটি সিএনজি নিয়ে মেডিকেলের দিকে ছুটে যাই। যাওয়ার পথে সে পানি খেতে চাইলে আমি তাকে পানি খাওয়াই। দুপুর একটার দিকেই হাসপাতালের পৌঁছার পরে সে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।
এদিকে গতকাল মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনার পর ঘাতক ট্রাক চালককে আটক করেছে পুলিশ। দুর্ঘটনার পর হিমুর চাচার সাথে ট্রাক চালকও সিএনজিযোগে হাসপাতালে আসেন। চমেক হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়িতে কথা হয় ট্রাক চালক আবদুল খালেকের সাথে। তিনি দৈনিক আজাদীকে বলেন, পতেঙ্গা কাটগড় এলাকার ইস্টার্ন রিফাইনারির মোড়ে বাম পাশের ট্রাক পিছনে পার্কিং করতে গিয়ে অসতর্ক অবস্থায় স্কুলছাত্রীটি চাপা পড়ে। কোনো গাড়ি চালক ইচ্ছে করে কাউকে চাপা দেয় না, এটি একটি দুর্ঘটনা বলে তিনি দাবি করেন।
জানতে চাইলে চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. জহিরুল ইসলাম বলেন, গতকাল দুপুরের দিকে গুরুতর আহত অবস্থায় স্কুলছাত্রী হিমুকে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

 

কালেরকথা/বিডি

মন্তব্য করুন

Logo

সম্পাদক: মাসুম বিল্লাহ কাওছারী

সিডরো মিডিয়া গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে রিনা দাশ কর্তৃক উত্তরা রেসিডেন্সিয়াল এলাকা ঢাকা থেকে প্রকাশিত

 01701703442   ||   info@dailykalerkotha.com