বুধবার, নভেম্বর ২৫, ২০২০

শিরোনাম

  ঢাকা থেকে প্রকাশিত জনপ্রিয় দৈনিক কালের কথা পত্রিকার জন্য বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আগ্রহী প্রার্থীরা ০১৭০১৭০৩৪৪২ নাম্বারে যোগাযোগ করুন।  

বরগুনা ট্রাজেডি: স্ত্রী মিন্নি রিফাত হত্যার বিষয়ে জানতো:রিফাতের বাবা


বরগুনা ট্রাজেডি: স্ত্রী মিন্নি রিফাত হত্যার বিষয়ে জানতো:রিফাতের বাবা

প্রকাশিতঃ রবিবার, জুলাই ১৪, ২০১৯   পঠিতঃ 209601


বরগুনা জেলা প্রতিনিধি :

বরগুনায় বহুল আলোচিত রিফাত হত্যাকাণ্ডের জট খুলতে শুরু করেছে। রিফাত শরীফ হত্যাকান্ডের মূল হোতা হিসেবে তার স্ত্রী মিন্নির বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছেন রিফাত শরীফের বাবা। খুনি নয়ন বন্ডের সাথে মিন্নির বিবাহ হয়েছিল অনেক আগেই, তবে সেই বিবাহের কথা গোপন করেই রিফাতের সাথে মিন্নির বিবাহ দেয় তার পরিবার। তাই মিন্নিকেও গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে নিহত রিফাতের বাবা আব্দুল হালিম দুলাল শরীফ।

শনিবার রাত পোনে আটটার দিকে বরগুনা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এ দাবী করেন তিনি।

এসময় তিনি আরও বলেন, রিফাতের সাথে বিবাহ হওয়ার পরেও প্রতিনিয়ন নয়ন বন্ডের সাথে রিফাতের স্ত্রী মিন্নির ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল। এমনকি মিন্নি প্রায় প্রতিদিনই নয়ন বন্ডের বাড়িতে আসা যাওয়া করতো। এ ছারাও রিফাতকে হত্যার সময় সিসিটিভির ফুটেজে দেখা গেছে সরকানি কলেজের সামনের গেটে মিন্নিকে রিফাত তার মটর সাইকেলে উঠিয়ে নিয়ে যেতে চায় তবে মিন্নি তখন সময়ক্ষেপন করে। আর তার মধ্যেই নয়ন বন্ড গ্রুপ রিফাতকে মারধর করতে করতে কলেজের পূর্ব দিকে নিয়ে যায়। সেই সময়ে মিন্নি স্বাভাবিক ভাবেই সেইসব দৃশ্য দেখতে থাকে এবং তাদের পিছনে হাটতে থাকে।

তিনি আরো বলেন, পরে যখন নয়নের নির্দেশে রিফাত ফরাজী ও রিশান ফরাজী দা নিয়ে এসে রিফাত শরীফকে এলোপাথাড়ি কোপাতে  শুরু করে, তখন মিন্নি বাধা দিলেও তাকে কেউ আঘাত করেনি বা মিন্নির শরীরে কোনো প্রকার আঘাত লাগেনি। এসব বিষয়ের কারনে মিন্নিকেই হত্যাকাণ্ডের মূল হোতা দায়ী করে মিন্নিকে গ্রেপ্তারের দাবী জানান হয় সংবাদ সম্মেলনে।

এর আগে নয়ন বন্ডের মা সাংবাদিকদের বলেন ‘রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে ২৬ জুন (বুধবার)। এর আগের দিন মঙ্গলবারও মিন্নি আমাদের বাসায় এসে নয়নের সঙ্গে দেখা করে।’ ‘আমার ছেলে তো মারাই গেছে। আমার তো আর মিথ্যা বলার কিছু নেই। মিন্নি যে মঙ্গলবারও আমাদের বাসায় গিয়েছিল তা আমার প্রতিবেশীরাও দেখেছে।’

নয়ন বন্ডের মা আরও বলেন, ‘শুধু হত্যাকাণ্ডের আগের দিন মঙ্গলবারই নয়; রিফাত শরীফের সঙ্গে বিয়ে হওয়ার পরও মিন্নি নিয়মিত আমাদের বাসায় এসে নয়নের সঙ্গে দেখা করত। মোটরসাইকেলে মিন্নিকে রিফাত শরীফ কলেজে নামিয়ে দিয়ে চলে যেত। এরপর মিন্নি আমাদের বাসায় চলে আসত। আবার কলেজের ক্লাস শেষ হওয়ার আগ মুহূর্তে মিন্নি আমাদের বাসা থেকে বের হয়ে কলেজে যেত।’

রিফাত হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে মিন্নি জড়িত দাবি করে নয়নের মা শাহিদা বেগম বলেন, ‘রিফাতের সঙ্গে মিন্নির বিয়ের খবর পাওয়ার পর আমি আমার ছেলেকে অনেক নিষেধ করেছি, যোগাযোগ না রাখতে। কিন্তু আমার ছেলে নয়ন কখনও আমার কথা শুনত না। ওর মনে যা চাইতো ও তা-ই করত। নয়ন যদি আমার কথা শুনত তাহলে এমন নির্মম ঘটনা ঘটত না।’

 

 

কালেরকথা/বিডি

মন্তব্য করুন

Logo

সম্পাদক: মাসুম বিল্লাহ কাওছারী

সিডরো মিডিয়া গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে রিনা দাশ কর্তৃক উত্তরা রেসিডেন্সিয়াল এলাকা ঢাকা থেকে প্রকাশিত

 01701703442   ||   info@dailykalerkotha.com