মঙ্গলবার, অক্টোবর ২০, ২০২০

শিরোনাম

  ঢাকা থেকে প্রকাশিত জনপ্রিয় দৈনিক কালের কথা পত্রিকার জন্য বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আগ্রহী প্রার্থীরা ০১৭০১৭০৩৪৪২ নাম্বারে যোগাযোগ করুন।  

"সত্যবাণী"


"সত্যবাণী"

প্রকাশিতঃ রবিবার, জানুয়ারী ১৩, ২০১৯   পঠিতঃ 214326


আবদুল্লাহ আল-মুতাছিম:

ইসলাম! জাগো! মুসলিম জাগো! অfল্লাহ তোমার একমাত্র উপাস্য, কোরঅfন তোমার সেই ধর্মের, সেই উপাসনার মহাবাণী, সত্য তোমার ভূষণ, সাম্য মৈত্রী ম্বাধীনতা তোমার লক্ষ - তুমি জাগো! মুক্ত বিশ্বের বন্য শিশু তুমি, তোমায় পোষ মানায় কে? দুরন্ত চঞ্চলতা, দুর্দমনীয় বেগ, ছায়নটের নৃত্য-রাগ তোমার রক্তে, তোমাকে থামায় কে? উষ্ঞ তোমার খুন, মস্ত তোমার জিগর, দারাজ তোমার দিল, তোমায় রুখে কে? পাষাণ তোমার বক্ষ, লৌহ তোমার পঞ্জর, অজেয় তোমার বাহু, তোমায় মারে কে? জন্ম তোমার অারবের মহামরুতে, প্রাণ প্রতিষ্টা তোমার পর্বত গোহায়, উদাত্ত তোমার বিপুল বাণীর প্রথম উদ্বোধন কোহ-ই-তুরের নাঙ্গা শিখরে, -তুমি অমর, তুমি চির জাগ্রত, তুমি অজেয়৷ বীর তুমি, তোমার চিরন্তন মুক্তি, শাশ্বত বন্ধনহীনতা, অাজাদীর কথা ভুলায় কে? তোমার অধম্য শক্তি, দুর্দমনীয় সাহস, তোমার বুকে খঞ্জর চালায় কে? ইসলাম ঘুমাইবার ধর্ম নয়, মুসলিম শির নত করিবার জাতি নয়, তোমার অাদিম জন্মদিন হইতে তুমি বুক ফুলাইয়া, শির উচ্চ দুর্লঙ্ঘ, মহা পর্বতের মত দাঁড়াইয়া অাছ, তোমার গগনচুম্বী শিখরে অাকাশ-ভরা তারার অালো, অর্ধ চন্দ্রের উদীপ্ত প্রশান্ত জ্যোতিঃ- তোমার সে মহাগৌরবের কথা বিশ্বে চির-মহিমান্বিত, মনে পড়ে কি, তোমার সেই রক্ত-পতাকা যাহা বিশ্বের সিংহদ্বারে উড়িয়া ছিল-তোমার সেই শক্তি যাহা দুনিয়া মথিত অালোড়িত করেছিল? বল বীর, বল অাজ তোমার সেই শক্তি কোথায়? বল ভীরু, তোমার সে উগ্র মহাশক্তিকে কে পদানত করিল? উত্তর দাও! তোমায় অামি অাল্লাহর নামে অাহবান করিতেছি, উত্তর দাও! তোমার অপমান কেহ কখনও করিতে পারে নাই, ইসলাম অবমাননা সহে নাই, তুমি সত্য, ইসলাম সত্য, তোমার অামার বা ইসলামের অপমান যে সত্যের অপমান৷ তাহা যে সহ্য করে, সে ভিরু- সে ক্ষুদ্র৷ যেদিন তুমি তোমার উদার বাণী মহাশিক্ষা ভূলিয়া স্বাধীনতার বদলে অধীনতার ছায়া মাড়াইতে গিয়াছ সেই দিনই তোমার শিরে মিথ্যার, দুশমনের ভীম প্রহরণ বাজিয়াছে৷ ইসলাম এক মহান অাল্লাহ ব্যাতিত অার কাহরো নিকট শির নোয়ায় না, তোমার চির উচ্চ চির অটল ঋজু সেই শির অানত করিতে উদ্যত হইয়াছিলে, তাই অাজ তুমি অাঘাত পাইয়াছ; তাই তোমার বক্ষে বজ্রবেদনা, শক্তি শেল বাজিয়াছে৷ যদি অাঘাতই পাইয়াছ যদি অাজ এমন করিয়া গভীর বেদনাই তোমার মর্মে বাজিয়াছে, যদি এই প্রথম অবমানিত হইয়াছ, তবে তোমার লাঞ্ছিত সত্য, ক্ষুদ্র শক্তি অাবার উত্তাল সমুদ্র তরঙ্গের মত উদ্বেলিত হইয়া উঠুক৷ বল, -ইসলাম ভিক্ষা করে না৷ যাঞ্চা করে না৷ বল, -দুর্বলতা অামাদের ধর্মে নাই; বল, -অামাদের প্রাপ্য অামাদের মুক্তি অামরা নিজের শক্তিতে লাভ করিব৷ .....তোমার বাঁধে ভাঙ্গন ধরিয়াছে, তোমাকে ইহা হইতে রক্ষা পাইতে হইবে৷ তাই অাজ অামরা অামাদের সারা বিশ্বের লাঞ্ছিত বিক্ষুব্ধ শক্তি লইয়া এই মুক্ত মহা গগন তলে দাঁড়াইয়া বলিতে চাই- 'মন্ত্রের সাধন কিংবা শরীর পাতন'৷ এই মুক্ত গগনতলে তোমার মহাতীর্থ স্থান -অারাফাতের ময়দান অপেক্ষাও পবিত্র৷ এইখানে গৃহহীন পথহারা নিপীড়িত মুসলিম সার্বজনীন ভ্রাতৃত্ব পাইয়াছে, ইদের দিনের মত পরস্পর পরস্পরকে অালিঙ্গন করিয়াছে, বুকে বুকে জড়াইয়া ধরিয়াছে ৷ এই উন্মুক্ত প্রান্তরে দাঁড়াইয়া মুসলিম অাবার বল, 'মন্ত্রের সাধন কিংবা শরীর পাতন!' যদিও তুমি সর্বস্বহারা হও কোথাও তোমার মাথা গুঁজিবার ঠাই না থাকে, -কোচ পরোয়া নেই, তোমার মাথা নত করিও না ৷ অাবার সকলি পাইবে, মুসলিম হীন, এ ঘৃণার কথা শুনিবার পূর্বে কর্ণরন্ধ্রে সীসা ঢালিয়া বধির হইয়া যাও৷ তোমাদের এই "ইখওয়াৎ"কে কেন্দ্র করিয়া অামাদের অন্তরের সত্য স্বাধীন, শক্তিকে যেন কোনদিন বিসর্জন না দিই৷ তোমার বীর ভাইগুলি ওই যে তোমার দক্ষিণ পার্শ্বে ইসলামের এই শাশ্বত সত্য রক্ষার জন্য হেলায় প্রাণ বিসর্জন দিতেছে, সেই শহীদানের নব্য তুর্কী তরুনদের দেখ, অার গৌরবে তোমার বক্ষ ভরিয়া উঠুক, তাহাদের পানে তাকাও, তাহাদের অস্ত্র-ঝঞ্জনা শোনে-তাহাদের হুঙ্কারে তোমার হিম - শীতল রক্ত উষ্ঞ হয়ে বহিয়া যাক তোমার শিরায় শিরায়৷ মেঘমুক্ত প্রাটুক-মধ্যাহ্নের রক্ত ভাস্কর হইয়া তোমার বিপুল ললাটের ভাস্বর রাজটিকা হউক৷ তুমি অমর হও ৷ তুমি স্বাধীন হও৷ তোমার জয় হোক৷ 

(নজরুল রচনাবলী' ৩য় খন্ড)

কালেরকথা/বিডি

মন্তব্য করুন

Logo

সম্পাদক: মাসুম বিল্লাহ কাওছারী

সিডরো মিডিয়া গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ-এর পক্ষে রিনা দাশ কর্তৃক উত্তরা রেসিডেন্সিয়াল এলাকা ঢাকা থেকে প্রকাশিত

 01701703442   ||   info@dailykalerkotha.com